ঈশ্বরদী-ঢালারচর রেলপথ নির্মাণে নকশা পরিবর্তন

0
139

ঈশ্বরদী থেকে ঢালারচর রেলপথ নির্মাণে বেড়া উপজেলা অংশে মূল নকশা পরিবর্তন করে নতুন নকশা বানিয়ে বাঁকা করে নির্মাণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। তবে কর্তৃপক্ষ বলছে, পরিবর্তন নয়, মূল নকশা সংশোধন করা হয়েছে মাত্র।
এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, রেল মন্ত্রণালয়সহ সংশিল্গষ্ট বিভিন্ন বিভাগে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।
অভিযোগে জানা যায়, রেললাইন স্থাপনের লক্ষ্যে ২০১১ সালে ওই সব মৌজার জমি পরিমাপ করা হয়। ২০১২ সালে সেখানে রেললাইন নির্মাণের নকশা প্রণয়ন করে অনুমোদন দেওয়া হয়। নকশায় বড় শ্যামপুর, মালদাহ ও মহিষাকোলা মৌজায় এসএ দাগের নকশার ওপর দিয়ে রেললাইন দেখানো হয়। কিন্তু বালিন্দারি, হিজলাকোটা ও কোমরপুর মৌজায় নকশার দাগহীন সাদা অংশ দিয়ে রেললাইন দেখানো হয়। মূল নকশায় যেখানে সোজা করে রেললাইন দেখানো হয়েছিল, সেটি ২০১৬ সালের শেষ দিকে পরিবর্তন করে বাঁকা করে দেখানো হয়েছে। এতে রেলপথ নির্মাণের ব্যয় যেমন বাড়বে, তেমনি ক্ষতিগ্রস্ত ভূমির মালিকের সংখ্যাও বাড়বে বলে জানান তারা।
এলাকাবাসী জানায়, নতুন এই অনুমোদনহীন নকশা অনুযায়ী ইতিমধ্যে কয়েকটি মৌজার প্রচুর জমির মাটি, ফসল ও গাছপালা কেটে নষ্ট করা হয়েছে। একপর্যায়ে এলাকাবাসী ডিসেম্বরের মাঝামাঝি রেলপথ নির্মাণে বাধা দেয়। এরপর থেকে ওই এলাকায় রেলপথ নির্মাণের কাজ বন্ধ রয়েছে।
বালিন্দারি মৌজার ইউসুফ আলী বলেন, ‘রেলপথ নির্মাণের জন্য অবৈধভাবে আমার চার বিঘা জমির মাটি ও ফসল কেটে ফেলা হয়।
প্রকল্প পরিচালক সুবক্তগীন বলেন, প্রথমে যে নকশাটি করা হয়েছিল, তাতে কিছু ত্রুটি ছিল। ত্রুটি সংশোধন করে যে পথে রেললাইন নির্মাণ করা হচ্ছে, তা বাঁকা নয় বরং আগের চেয়ে সোজা। এতেই জমির ক্ষতি অনেক কমবে।