এডওয়ার্ড কলেজের সভায় শিক্ষকদের হাতাহাতি, সভা বয়কট

0
13

নিজস্ব প্রতিবেদক// সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের অধ্যক্ষের দুর্নীতি নিয়ে জরুরি স্টাফ কাউন্সিলের মিটিংয়ে শিক্ষকদের দুই গ্রুপের মধ্যে বাকবিতণ্ডা, হাতাহাতি ও মিটিং বয়কটের ঘটনা ঘটেছে। রবিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কলেজের স্টাফ কাউন্সিলের জরুরি এই সভা সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয়েছে।

উপস্থিত শিক্ষকরা জানান, কোটি টাকার দুর্নীতি নিয়ে কয়েকদিন ধরেই বিভিন্ন গণমাধ্যমে পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. হুমায়ুন কবির মজুমদারের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের কারণে রবিবার দুপুরে জরুরি স্টাফ কাউন্সিলের মিটিং আহ্বান করা হয়। ওই মিটিংয়ে কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।

শিক্ষকরা জানান, অধ্যক্ষ’র নিয়মবর্হিভূত নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগের বিষয়ে উপস্থিত সাধারণ শিক্ষকরা প্রশ্ন তুললে শুরু হয় বাকবিতণ্ডা। এ সময় অধ্যক্ষ’র দুর্নীতির পক্ষে অবস্থানকারী শিক্ষকরা দুর্নীতির বিরুদ্ধে অবস্থানকারী শিক্ষকদের ওপর চড়াও হন বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষকরা। এ নিয়ে শুরু হয় পক্ষের বাকবিতণ্ডা ও হাতাহাতি।

এক পর্যায়ে সাধারণ শিক্ষকরা গিয়ে শিক্ষকদের উভয় গ্রুপকে নিবৃত করেন। এরই এক পর্যায়ে দুর্নীতি বিরোধী শিক্ষকরা মিটিং বয়কট করে বের হয়ে যান।

উপস্থিত শিক্ষকরা আরও বলেন, অধ্যক্ষ’র দুর্নীতি ও অনিয়ম এবং স্বেচ্ছাচারিতা নিয়ে মিটিংয়ে ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ফখরুল ইসলাম সুজা, বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল মজিদ, অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হাফিজ ইকবালসহ সাধারণ শিক্ষকরা কথা বলা শুরু করেন। এ সময় ক্ষিপ্ত হয়ে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন স্টাফ কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক একেএম শওকত আলী খান ও ইসলামের ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সোহেল মাসুদ আলী। এ নিয়ে দেখা দেয় উভয় গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা। দুর্নীতির বিপক্ষে অবস্থান নেয়া শিক্ষকরা জরুরি বৈঠক বর্জন করে বের হয়ে যান।

লাঞ্ছিত শিক্ষকরা বলেন, দুর্নীতির পক্ষে অবস্থান করা ওই শিক্ষকদ্বয় অধ্যক্ষ’র আর্শিবাদ পুষ্ট এবং অধ্যক্ষ’র অনিয়ম, দুর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতের সাথে তারা জড়িত। এ ঘটনার পর থেকে কলেজের শিক্ষকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে অসন্তোষ।

এ বিষয়ে স্টাফ কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক একেএম শওকত আলী খান বলেন, স্টাফ কাউন্সিলে এ ধরণের কোন ঘটনা ঘটেনি। আলোচনা করতে গেলে পর্যালোচনা-সমালোচনা আসবেই। কিছু মানুষ এ ধরণের তথ্য বিভ্রাট করছেন মাত্র।