আফগানিস্তানে অপহৃত পাবনার দুই সন্তান উদ্ধার

0
20

0c827f5091fa23aecbd66a9e871c7cda-Untitled-7আফগানিস্তানে অপহৃত ব্র্যাকের দুই কর্মকর্তাকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে বলে জানিয়েছেন, ব্র্যাকের জ্যেষ্ঠ পরিচালক আসিফ সালেহ।

সোমবার এই তথ্য নিশ্চিত করে তিনি জানিয়েছেন, তারা সুস্থ আছেন, তবে শারীরিকভাবে কিছুটা দুর্বল। এই দুই কর্মকর্তাকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

পাবনার এই দুই কৃতি সন্তান হলেন ব্র্যাকের প্রধান প্রকৌশলী পাবনা জেলার ফরিদপুর উপজেলার হাংরাগাড়ি গ্রামের বাসিন্দা হাজি শওকত আলী (৫২) এবং প্রধান হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা পাবনা সদর উপজেলার দুবলিয়া গ্রামের বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম খান সুমন (৩৫)।

উল্লেখ্য, গত ১৭ মার্চ সংঘাতপ্রবণ আফগানিস্তানের কুন্দুজ থেকে বাগলান যাওয়ার পথে বিশ্বের সর্ববৃহৎ এনজিওর এই দুই কর্মকর্তা অপহৃত হয়েছিলেন। অজ্ঞাত পরিচয়ের বন্দুকধারীরা তাদের তুলে নিয়ে গিয়েছিল।

আফগানিস্তানে তালেবান জঙ্গিরা সক্রিয়। তবে দেশটির উত্তরাঞ্চলে দুই বাংলাদেশিকে ধরে নিয়ে যাওয়ায় কারা জড়িত, সে বিষয়ে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

ব্র্যাক ইন্টারন্যাশনালের পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, আমরা স্থানীয় নেতাদের সহায়তায় তাদের উদ্ধার করেছি। নানা মাধ্যমে তাদের উদ্ধারে আলোচনা চালিয়ে গিয়েছিলাম।

এর আগে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের বলেছিলেন, দুই ব্র্যাক কর্মকর্তাকে উদ্ধারে সর্বোচ্চ চেষ্টার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এই ঘটনার পর কাবুলে যাওয়া ব্র্যাকের এশিয়া অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক জালাল উদ্দিনকে উদ্রিতি করে সংস্থাটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আলোচনার ভিত্তিতে স্থানীয় শূরা কাউন্সিলের সহায়তায় দুই সহকর্মী আমাদের মাঝে ফিরে এসেছেন। ভোরে অক্ষত অবস্থায় মুক্তি পেয়ে শওকত ও সুমন ব্র্যাকের কাবুল কার্যালয়ে চলে আসেন।

দুজন এখন সেখানেই নিরাপদে রয়েছেন জানিয়ে আসিফ সালেহ বলেন, তারা দেশে থাকা স্বজনদের সঙ্গে টেলিফোনে কথাও বলেছেন।

যুদ্ধ বিধ্বস্ত আফগানিস্তানে পুনর্গঠনের কাজে থাকা ব্র্যাকের কর্মীরা এর আগেও বেশ কয়েকবার আক্রান্ত হন। ২০০৭ সালে নূরুল ইসলাম নামে এক ব্র্যাক কর্মকর্তা অপহৃত হওয়ার ৮৩ দিন পর মুক্তি পান।
২০০৮ সালের অক্টোবরে গজনি প্রদেশ থেকে অপহৃত হন দুজন। ১০ দিন পর তাদের মুক্তি দেওয়া হয়।